গৃহ রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন

গৃহ- রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন

ΔΔ কবি পরিচিতি:

নাম: রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন।
জন্মতারিখ: জন্মপরিচয় ৯ ডিসেম্বর, ১৮৮০ খ্রিস্টাব্দ।
জন্মস্থান: পায়রাবন্দ, মিঠাপুকুর, রংপুুর।
পিতা ও মাতা: জহিরুদ্দিন মোহাম্মদ আবু আলী হায়দার সাবের।
মাতার নাম : রাহাতুন্নেসা চৌধুরী।
শিক্ষাজীবন: পারিবারিক রক্ষণশীলতার কারণে তিনি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা লাভ করতে পারেন নি। তবে নিজের ঐকান্তিক চেষ্টা এবং বড় ভাই ও তাঁর স্বামীর অনুপ্রেরণায় ও সহযোগিতায় জ্ঞানচর্চায় সাফল্য অর্জন করেন।
কর্মজীবন বিবাহোত্তর প্রথম জীবনে গৃহিণী। স্বামীর মৃত্যুর পর তিনি সমাজসংস্কার, নারীর শিক্ষা, কর্মসংস্থান ও আইনগত অধিকার প্রতিষ্ঠায় আত্মনিয়োগ করেন। এসব কাজে তিনি বলিষ্ঠ ভূূমিকা পালন করেন।
গদ্যগ্রন্থ: সাহিত্যকর্ম মতিচূর, অবরোধবাসিনী, ড্যালিসিয়া হত্যা, নূর ইসলাম প্রভৃতি।
উপন্যাস : পদ্মরাগ।
অনুবাদগ্রন্থ : সুলতানার স্বপ্ন। (উপন্যাস)
বিশেষ কৃতিত্ব: তিনি ছিলেন নারী জাগরণের অগ্রদূত। তিনি মুসলিম নারীদের সংষ্কার ও মুক্তির জন্য তাদেরকে শিক্ষার আলোকে উদ্ভাসিত করার মানসে আজীবন ক্ষুরধার সাহিত্য সৃষ্টি করে গেছেন।

ΔΔ পাঠ – পরিচিতি:

প্রচলিত সমাজব্যবস্থায় সাধারণত বলা হয়ে থাকে, নারীর জন্য বরাদ্দ ‘ ঘর ‘, আর পুরুষের জন্য আছে ‘বাহির’। অর্থাৎ পুরুষ সম্পৃক্ত থাকবে বাইরের জীবন ও জগতের সঙ্গে । অন্য দিকে, গার্হস্থ্য ও পারিবারিক জীবনে সীমাবদ্ধ থাকবে নারী। এ ধরনের দৃষ্টিভঙ্গি সামজে পুরুষের আধিপত্যকে প্রতিষ্ঠিত করে; নারীকে করে তোলে ঘরের সামগ্রী। কিন্তু নারীর সত্যিই কোনো ঘর বা গৃহ আছে কিনা- এ নিয়েই তৈরি হতে পারে প্রশ্ন; রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন এ প্রশ্নটিই তুলেছেন ‘গৃহ’ প্রবন্ধে । ব্যক্তিগত ও সামাজিক অভিজ্ঞতা সূত্রে তিনি দেখিয়েছেন পুরুষের আধিপত্য ও প্রতিপত্তির কাছে নারীর ঘরও বিপন্ন, ঘর বলে প্রকৃতপক্ষে কিছু নেই। নারীর অর্থ, সম্পদ, সম্পত্তি ও জীবনযাপন- প্রায় সব কিছুর ওপর প্রভাব বিস্তার করেছে পুরুষ। পারিবারিকভাবে প্রাপ্ত সম্পদ ও সম্পত্তিও দখল করে নিয়েছে পুরুষ। প্রবন্ধটিতে বেশ কিছু ঘটনা বিশ্লেষণ করে রোকেয়া দেখিয়েছেন পুরুষের নিয়ন্ত্রণ ও অভিভাবকত্বে নিজস্ব গৃহের আনন্দ ও অনুভূতি থেকে নারী প্রবলভাবে বঞ্চিত। পুরুষতান্ত্রিক সমাজে নারীর অবস্থান চিহ্নিত করে দেখিয়েছেন নারী- পুরুষ নির্বিশেষ গৃহ বা ঘর প্রকৃতপক্ষে মানুষের শারীরিক ও মানসিক প্রশান্তির স্থান।

ΔΔ শব্দার্থ ও টীকা:

  • পিপাসা – তৃষ্ণা, পান করার বাসনা, প্রবল আগ্রহ।
  • সংসার – ঘরকন্না, গার্হস্থ্য জীবন।
  • দৃষ্টিপাত – দৃষ্টি নিক্ষেপ, অবলোকন।
  • নিকেতন – গৃহ, আবাস, আলয় , বাসস্থান।
  • শোচনিয় – শোকের যোগ্য, দুঃখজনক।
  • অভ্যর্থনা – অভ্যাগতকে সম্মানসহকারে গ্রহণ।
  • সবিস্ময়ে – বিস্ময় সহকারে।
  • সন্ততি – সন্তান।
  • আহ্বান – নিমন্ত্রণ, আমন্ত্রণ।
  • সাক্ষাৎ – দর্শন, প্রত্যক্ষ, সরাসরি।
  • বাঞ্ছনীয় – কাম্য, প্রত্যাশিত, প্রার্থনীয়।
  • পরিচয় – জানাশোনা, নামধাম প্রভৃতির বিবরণ।
  • হতজ্ঞান – অচেতন, অজ্ঞান, সংজ্ঞাহীন।
  • বজ্রপাত – বজ্রের পতন।
  • মিষ্টভাষিণী – সুন্দর বা মিষ্টি করে কথা বলে যে ।
  • নিকটবর্তী – কাছে।
  • অপ্রশস্ত – সংকীর্ণ, অবিস্তৃত।
  • প্রদক্ষিণ – চতুর্দিকে ভ্রমণ।

HSC বাংলা সাহিত্য গল্প,কবিতা,উপন্যাস

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি প্রস্তুতি-
নংগল্প + কবিতার নামসাহিত্যিকদের নামলিঙ্ক
০১আমার পথকাজী নজরুল ইসলামClick
০২বিড়ালবঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়Click
০৩চাষার দুক্ষুবেগম রোকেয়া সাখাওয়াতClick
০৪বায়ান্নর দিনগুলোশেখ মুজিবুর রহমানClick
০৫অপরিচিতারবীন্দ্রনাথ ঠাকুরClick
০৬মাসি-পিসিমানিক বন্দ্যোপাধ্যায়Click
০৭জীবন ও বৃক্ষমোতাহের হোসেন চৌধুরীClick
০৮জাদুঘরে কেন যাবআনিসুজ্জামানClick
০৯নেকলেসগী দ্য মোপাসাঁ/ পূর্ণেন্দু দস্তিদারClick
১০রেইনকোটআখতারুজ্জামান ইলিয়াসClick
১১আহ্বানবিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়Click
১২মহাজাগতিক কিউরেটরমুহম্মদ জাফর ইকবালClick
১৩সাম্যবাদীকাজী নজরুল ইসলামClick
১৪ঐকতানরবীন্দ্রনাথ ঠাকুরClick
১৫বিভীষণের প্রতি মেঘনাদমাইকেল মধূসুদন দত্তClick
১৬নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায়সৈয়দ শামসুল হকClick
১৭তাহারেই পড়ে মনেসুফিয়া কামালClick
১৮ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯শামসুর রাহমানClick
১৯রক্তে আমার অনাদি অস্থি দিলওয়ার খানClick
২০ সেই অস্ত্রআহসান হাবিবClick
২১আঠারো বছর বয়সসুকান্ত ভট্টাচার্যClick
২২লোক লোকান্তরমীর আবদুস শুকুর আল মাহমুদClick
২৩এই পৃথিবীতে এক স্থান আছে জীবনানন্দ দাশClick
২৪আমি কিংবদন্তির কথা বলছিআবু জাফর ওবায়দুল্লাহClick
২৫লালসালুসৈয়দ ওয়ালীউল্লাহClick
২৬সিরাজউদ্দৌলাসিকান্দার আবু জাফরClick
২৭বাঙ্গালার নব্য লেখকদিগের প্রতি নিবেদনবঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়Click
২৮বিদ্রােহীকাজী নজরুল ইসলাম Click
২৯গৃহরোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন Click
৩০মানব কল্যাণ-আবুল ফজলClick

ΔΔ পাঠ বিশ্লেষণ:

 ‘পশু পক্ষীদেরও গৃহ আছে।
‘গৃহ’ প্রবন্ধে গৃহের কথা বলা হয়েছে । গৃহ একটি আরাম ও শান্তির জায়গা। যেখানে মানুষ ও পশু – পাখি নিজেকে নিরাপদ মনে করে । কারণ সেখানে থাকলে ঝড়, বৃষ্টি, রোদ থেকে তারা বাঁচতে পারে । গৃহের গুরুত্বের কথা বলতে গিয়ে লেখিকা বলেছেন, পশু – পক্ষীদেরও গৃহ আছে।

 ‘কুমারি, সধবা, বিধাব- সকল শ্রেণির অবলার অবস্থাই শোচনীয়।
ভারতের অধিকাংশ নারী গৃহসুখ থেকে বঞ্চিত। কেননা তারা অন্যের অধীন থাকে। অভিভাবক অর্থাৎ বাবা, স্বামী, ভাই বা দেবর কারও গৃহকে নিজের গৃহ ভাবার অধিকার তার নেই। তাদের কাছে গৃহ কারাগার সমতুল্য। সমাজের সব ধরনের নারী যেমন- কুমারী, সধবা, বিধবা— সবার অবস্থাই শোচনীয় ।

 কক্ষগুলি ‘অসূৰ্য্যম্পশ্য’ বলিয়া বোধ হইল।
লেখিকা তাঁর আত্মীয়ের বন্ধুর বাড়ি বেড়াতে গেলে বাড়ির মেয়েরা তাকে তাদের গৃহগুলো দেখাতে থাকেন। বন্ধুর বোন জমিলা জানান তারা কখনো গাড়িতে চড়েননি । কারণ তাদের গাড়িতে চড়ার প্রয়োজন হয়নি। জমিলা লেখিকাকে বলেন এই পাড়ায় যত গৃহ আছে সব তাদেরই গোষ্ঠীর । জমিলা তার বাড়িতে লেখিকাকে নিয়ে যান একটি অপ্রশস্ত গলির মধ্য দিয়ে। কক্ষগুলো দেখে লেখিকার মনে হয় এই কক্ষগুলোতে কখনই সূর্যের আলো স্পর্শ করেনি।

ΔΔ চৌম্বক তথ্য:

  1. রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের প্রকৃত নাম রোকেয়া খাতুন।
  2. রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনকে নারীশিক্ষার অগ্রদূত বলা হয়।
  3. তিনি সমাজের কুসংস্কার ও জড়তা দূর করার জন্য পান্ডিত্যপূর্ণ ও হৃদয়গ্রাহী গদ্য রচনা করেছেন।
  4. ‘গৃহ’ প্রবন্ধে লেখিকা গৃহে নারীর দুরবস্থার কথা তুলে ধরেছেন।
  5. যে মানুষ সারা দিন বাড়ির বাইরে থাকবে সেই প্রকৃতপক্ষে গৃহে ফেরার আনন্দ অনুভব করবে।
  6. রানির নয়ন দুটিতে হৃদয়বিদারক ভাব ছিল।
  7. লেখিকা জামালপুরের নিকটবর্তী কোনো এক শহরে একবার বেড়াতে গিয়েছিলেন।
  8. লেখিকার আত্মীয়ের বন্ধুর নাম শরাফত । শরাফতের স্ত্রী হসিনা , বোন জমিলা। তারা কখনো গাড়িতে চড়েননি , বাড়ির বাইরে যাননি।
  9. কলিম ও সলিম দুজন ভায়রাভাই।
  10. রমাসুন্দরী বিধবা । তার সন্তান নেই ।
  11. খদিজার স্বামীর নাম হাশেম। তিনি আরও দুই – তিনটি বিয়ে করেছেন।
  12. হাশেম ছলে কৌশলে খাদিজার জমিজমা আত্মসাৎ করে।
  13. মহম্মদীয় আইন অনুসারে কন্যারা পিতার সম্পদের উত্তরাধিকারিণী।

ΔΔ বানান সতর্কতা:

কর্মক্লান্ড, বিশ্রাম, উৎসুক, দৃষ্টিপাত, বঞ্চিতা, শোচনীয়, ব্যথিত, অভ্যর্থনা, অসূর্যম্পশ্য, কোরব, প্রফুল্লমুখী, কণ্টক, সন্ততি, অধীশ্বর, কুণ্ঠিত, আহ্বান, বাঞ্ছনীয়, মহম্মদীয়, প্রবীণা, কটু, বজ্রনাদ, বজ্রপাত, হতজ্ঞান, অমানিশীথে , দগ্ধ, শরণাপন্ন , নিরাশ্রয়া।

১। রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের জন্ম কত সালে?
ক. ১৮৮০
খ. ১৮৭০
গ. ১৮৫০
ঘ. ১৮৫৫
২। কত সালে রোকেয়া ও সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেনের বিবাহ সম্পন্ন হয়?
ক. ১৮৯৪
খ. ১৮৯৫
গ. ১৮৯৭
ঘ. ১৮৯৮
৩। সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেন পেশায় কী ছিলেন?
ক. উকিল
খ. শিক্ষক
গ. ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট
ঘ. চিকিৎসক
৪। সাহিত্যজগতে রোকেয়া কী হিসেবে সমধিক পরিচিত?
ক. কথাশিল্পী
খ. গদ্যশিল্পী
গ. বিশিষ্ট শিল্পী
ঘ. প্রাবন্ধিক
৫। রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের উল্লেখযোগ্য উপন্যাস কোনটি?
ক. কপালকুন্ডলা
খ. শ্রীকান্ত
গ. বড়দিদি
ঘ. পদ্মরাগ
৬। রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন রচিত ‘সুলতানার স্বপ্ন’ কোন ধরনের গ্রন্থ?
ক. গল্প
খ. প্রবন্ধ
গ. উপন্যাসঘ. নাটক
৭। আরাম বিরামের শান্তিনিকেতন বোঝায়-
ক. গৃহকে
খ. ঘরকে গ. বাড়িকে
ঘ. গ্রামকে
৮। গৃহ গৃহীকে রক্ষা করে-
ক. বজ্রপাত থেকে
খ. বৃষ্টি থেকে
গ. কুয়াশা থেকে
ঘ. ঝড় থেকে
৯। পশু পক্ষীরাও নিজেদেরকে তাদের স্ব স্ব গৃহে কী মনে করে?
ক. নিরাপদ
খ. রাজা
গ. দাস
ঘ. অনিরাপদ
১০। পিপাসা না থাকলে কী উপাদেয় বোধ হয় না?
ক. ভাত
খ. গৃহ
গ. পানি
ঘ. বিশ্রাম
১১। পুরুষেরা সর্বদা কোথায় যায় না?
ক. বাইরে
খ. বিদেশে
গ. ভ্রমণে
ঘ. বাজারে
১২। সকল শ্রেণির অবলাদের অবস্থা কেমন?
ক. শোচনীয়
খ. ইতিবাচক
গ. মর্মান্তিক
ঘ. আশাব্যঞ্জক
১৩। সকল শ্রেণির কাদের অবস্থাই শোচনীয়?
ক. মানুষের
খ. পুরুষদের
গ. পশুদের
ঘ. অবলাদের
১৪। পরিবারিক জীবনে যে খুশি নয়, তার কাছে গৃহ?
ক. শান্তিনিকেতন
খ. শান্তিনিকেতন নয়
গ. অশান্তির স্থান
ঘ. কারাগর
১৫। সংসারক্ষেত্র থেকে বাড়ি ফেরার জন্য উৎসুক থাকে কে?
ক. পুরুষরা
খ. নারীরা
গ. সংসারি মানুষ
ঘ. ছাত্ররা
১৬। শরাফত পেশায় কী ছিল?
ক. উকিল
খ. ডাক্তার
গ. লেখক
ঘ. রাজা
১৭। শরাফতের পত্নী ও ভগ্নির নাম কী?
ক. হাসিনা ও রমা
খ. রমা ও জামিলা
গ. হসিনা ও জমিলা
ঘ. রমা ও হসিনা
১৮। জমিলার পুত্রবধূ তাদের কে হয়?
ক. প্রতিবেশি
খ. আত্মীয় কন্যা
গ. বোনের মে
ঘ. নাতনি
১৯। জমিলার কন্যার বাড়ি কোথায়?
ক. অন্য এক জেলায়
খ. অন্য এক শহরে
গ. অন্য একটি ঘরে
ঘ. অন্য এক পাড়ায়
২০। এদেশের বাসরঘরকে কী বলে?
ক. মেহ্রব
খ. জয়নাব

গ. কোহ্রব
ঘ. জান্নাত
২১। আসলে বাসরঘরকে কী বলা উচিৎ?
ক. কবর
খ. বন্ধ ঘর
গ. গৃহ
ঘ. বদ্ধ দ্বার
২২। যেহেতু স্ত্রী লোকের পারিবারিক জীবন নেই- তাই তাদেও কী বলা যেতে পারে?
ক. অকর্মা
খ. নিষ্কর্মা
গ. বন্দিনী
ঘ. অবলা
২৩। ‘রোকেয়া রচনাবলি’ কোথা থেকে প্রকাশিত হয়?
ক. বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র
খ. বাংলা একাডেমি
গ. বাংলা প্রকাশ
ঘ. জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র
২৪। কলিমের বাড়ি কোথায়?
ক. জামালপুর
খ. বিহার
গ. মালদহ
ঘ. মুর্শিদাবাদ
২৫। কলিমের ভায়রা ভাইয়ের নাম কী?
ক. নগেন্দ্র
খ. হাশেম
গ. সলিম
ঘ. শরাফত
২৬। যিনি রমা সম্পর্কে মন্তব্য করেছিলেন, তিনি রমাকে কত বছর থেকে জানেন?
ক. ১৩/১৪
খ. ১৪/১৫
গ. ১৫/১৬
ঘ. ১৬/১৭
২৭। রানিকে দেখে প্রবন্ধিক কী হয়েছিলেন?
ক. পুলকিত
খ. আনন্দিত
গ. হতাশ
ঘ. বিরক্ত
২৮। লোকে কোন পদ বাঞ্ছনীয় বোধ করে?
ক. রাজার পদ
খ. মন্ত্রীর পদ
গ. সেনাপতির পদ
ঘ. রানির পদ
২৯। হাশেম দারিদ্র কিন্ত কুলীন?
ক. পুরুষ
খ. মূর্খ
গ. বিদ্বান
ঘ. ব্রাহ্মণ
৩০। নায়েবের ক্রীড়াপুতুল কে?
ক. নায়েবের স্ত্রী
খ. রানি
গ. নায়েবের বোন
ঘ. গৃহকর্মী

উত্তর মালা 

১০
১১ ১২ ১৩ ১৪ ১৫ ১৬ ১৭ ১৮ ১৯ ২০
২১ ২২ ২৩ ২৪ ২৫ ২৬ ২৭ ২৮ ২৯ ৩০

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *